মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করার ৫টি সহজ উপায়

Spread the love

ডেক্সটপ বা ল্যাপটপের পাশাপাশি এখন সহজেই মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করা যায়। অনলাইনে বেশ কিছু সাইট রয়েছে যে গুলোতে কাজ করে মোটামোটি ভালো পরিমান টাকা ইনকাম করা সম্ভব। অনেকেই হয়তো বলতে পারে যে মোবাইল ব্যবহার করে কি অনলাইনে টাকা ইনকাম করা যায় ?

আপনি একটা মোবাইল দিয়ে কি করেন ? ইন্টারনেট ব্রাউজ করেন, ইউটিউবে ভিডিও দেখেন, চ্যানেল সাবস্কাইব করে, লাইক করেন, ফেইজবুকে একাউন্ট করেন, ফেইজবুকে লাইক কমেন্ট ও শেয়ার করেন, জিমেইল ব্যবহার করেন।

আজকের এই পোষ্টে মোবাইলে ইনকাম করার মতো এই রকম সেরা পাচটি উপায় সম্পর্কে বলা হবে, যা দিয়ে মোটামোটি একটা ভালো পরিমান টাকা ইনকাম করা যাবে।

মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করার ৫টি উপায় সমূহঃ

  • মাইক্রোওয়াকাস সাইটে ইনকাম
  • ইউটিউবে  ইনকাম
  • ব্লগিং করে ইনকাম
  • ডিজিটাল মাকেটিং করে ইনকাম
  • ডাটা এন্টি করে ইনকাম

(১) মাইক্রোওয়ার্কার্স সাইটে ইনকাম : 

প্রথমেই এই সাইটটি নিয়ে আলোচনা করব যার মাধ্যমে আপনি সবচেয়ে সহজ এবং স্বল্প সময়ে মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করতে পারেন। 

আপনি যদি কোন দক্ষতা ছাড়া হাতের মোবাইল ব্যবহার করে টাকা ইনকাম করতে চান তাহলে মাইক্রোওয়াকাস সাইট গুলোতে কাজ করতে পারবেন। এই সাইট গুলোতে বিনামূল্য একাউন্ট করে প্রতিদিন আপনি ১০০-৩০০ টাকার মতো ইনকাম করতে পারবেন।

নিচে উল্লেখিত এই সকল সাইটে কাজ করে যদি লাখ লাখ টাকা ইনকাম করার চিন্তা থাকে তাহলে ভুল হবে। কারন এই সকল সাইট গুলোতে কাজ করে আপনি মোটামোটি হাত খরচ বের করতে পারবেন। যদি আপনি এর থেকে বেশি টাকা ইনকাম করতে চান তাহলে এই সাইট গুলো আপনার জন্য না।

মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করার জনপ্রিয় তিনটি ওয়েবসাইটঃ

  • Microworker.com : মোবাইলে কাজ করে টাকা ইনকাম করার জন্য সেরা একটা সাইট হলো মাইক্রোওয়াকাস। এই সাইটে আপনি কাজ করে মোটামোটি ভালো পরিমান টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এই সাইটটি মোবাইলে ডাটা এন্টি করে ইনকাম করার জন্য খুবই জনপ্রিয়।
  • Picoworker.com : মোবাইলে ইনকাম করার জন্য আরেকটি সেরা সাইট হলো পিকো । যে সাইটে আপনি ছোট ছোট কাজ করে ‍মাত্র   ৫ ডলার হলেই সেই টাকা তুলে ফেলতে পারবেন। সেজন্য মোবাইলে টাকা ইনকাম করার জন্য পিকোতে কাজ করতে পারেন।
  • Rapidworker.com : মোবাইলে ইনকাম করার জন্য আরেকটি সেরা সাইট হলো রেপিড।  তবে এই সাইটে কাজ করে আপনি কাজ শেষ করতে পারবেন না। কারনে এই সাইটে যে কাজ গুলো থাকে সেই সকল কাজ করলে আপনি ৫০০ টাকার মতো ইনকাম করতে পারবেন।

(২) ইউটিউবে  ইনকাম :

আপনি যদি জীবনে স্থায়ী ইনকাম করার জন্য কোন সিস্টেম তৈরি করতে চান তাহলে ইউটিউবে কাজ করতে পারেন। তবে ইউটিউবে কাজ করলে ভালো মানের কনটেন্ট তৈরি করতে হবে। অনেকে মোবাইল ব্যবহার করে ব্লগিং এর মতো ভিডিও তৈরি করে ইনকাম করে থাকে।

আবার আপনি যদি ভয়েজ দিতে পারেন তাহলে বেশ অনেক গুলো ভিডিও এডিটিং অ্যাপ রয়েছে  যেগুলোর মাধ্যমে আপনি ভালো কোয়ালিটির ভিডিও তৈরি করতে পারবেন। যদি ঠিক ভাবে ভিডিও তৈরি করতে পারেন তাহলে আপনি বেশ কিছু দিনে এই সেক্টরে সফলতা পারেন। 

‌আর কষ্ট করে যদি ইউটিউবে ভালো একটা চ্যানেল দাঁড় করাতে পারেন তাহলে বেশ অনেক গুলো উপায়ে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। সেজন্য একটু ভালো করে চিন্তা করে ভালো একটা কেটাগড়িতে একটা ইউটিউব চ্যানেল খুলে সেটাতে প্রতিদিন ভিডিও আপলোড করেন।

(৩) ব্লগিং করে ইনকাম  :

ইউটিউবে কাজ করে টাকা ইনকাম করার মতো ব্লগিংও একটা ইনকাম মেথড যেটাতে আপনি কাজ করে জীবনে একটা স্থায়ী ইনকাম করার সিস্টেম তৈরি করতে পারবেন। আপনি এখন যে লেখা গুলো পড়ছেন। যে রকম একটা সাইট দেখছেন আপনি এই রকম একটা ওয়েবসাইট তৈরি করে কনটেন্ট লিখা শুরু করতে পারেন।

তবে আপনার মোবাইলে ভালো টাইপিং করার দক্ষতা থাকতে হবে। আপনি যদি গুছিয়ে সুন্দর করে পোষ্ট লিখতে পারেন তাহলে অল্পতেই ব্লগিং করে ভালো টাকা ইনকাম করতে পারবেন। যদি আপনি এই রকম একটা সেক্টর তৈরি করতে চান তাহলে ইউটিউবে এবং গুগলে সাচ করে কি করে মোবাইলে টাকা ইনকাম করতে হয়।

(৪) ডিজিটাল মাকেটিং করে ইনকাম : 

আপনি যদি হাতের মোবাইল ব্যবহার করে ভালো পরিমান টাকা ইনকাম করতে চান তাহলে আপনার জন্য সেরা একটা মেথড হতে পারে ডিজিটাল মাকেটিং। এই সেক্টরে আপনি মোবাইল ব্যবহার করেও ভালো পরিমান টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

আপনি যদি মোবাইল ব্যবহার করে লাখ লাখ টাকা ইনকাম করতে চান তাহলে আপনার জন্য সেরা সেক্টর হতে পারে ডিজিটাল মাকেটিং। এই সেক্টরে আপনি যতো সময় দিবেন ততো টাকা ইনকাম করতে পারবেন। এই কাজ গুলো মোবাইল দিয়েই খুব সহজেই করতে পারবেন।

(৫) ডাটা এন্টি করে ইনকাম : 

কেমন হয় মোবাইল দিয়ে ছোট ছোট ডাটা এন্টি করে যদি প্রতিদিন ১০০-৩০০ টাকা ইনকাম করতে পারবেন। হুম বন্দুরা আমি নিজে মোবাইল ব্যবহার করে ১২০০০ টাকা পযন্ত ইনকাম করেছি। মোবাইল দিয়ে আপনি মাইক্রোওয়াকাস সাইট থেকে প্রতিদিন ১০০-৩০০ টাকা ইনকাম হবে। 

আমরা ইতিমধ্য মাইক্রোওয়াকাস সাইট নিয়ে বিস্তারিত জেনেছি। মুলতো ছোট ছোট ডেইট, টেক্সট, নাম্বার ইত্যাদি পুরন করে আপনি টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আর যখন আপনার একাউন্ট এর ব্যালেন্স যখন পা‍ঁচ ডলার হয়ে যাবে তখন সেই টাকা বিকাশে নিয়ে আসতে পারবেন।

শেষ কথাঃ 

মনে রাখবেন মোবাইল ব্যবহার করে আপনি লাখ লাখ টাকা ইনকাম করতে চাইলে সেটা কোন দিনই পারবেন না। কিন্তু যদি মোবাইল ব্যবহার করে হাত খরচ বের করতে চান তাহলে আপনার জন্য হতে পারে উপরের মেথড গুলো। যেগুলো মাধ্যমে ভালো পরিমান টাকা ইনকাম করা যাবে।

আর আপনি মোবাইল দিয়ে কাজ করতে করতে বেশ অনেক গুলো বিষয় জানতে পারবেন যেটার মাধ্যমে আপনার ফ্রিলান্সিং ক্যারিয়ার তৈরি করতে অনেকটা হেল্প করবে। প্রথমে শুরু করেন পরে দেখবেন আস্তে আস্তে অনেক কিছু শিখে ফেলেছেন। 

আপনি ইনকামের এমাউন্টটি হয়তো ছোট হতে পারে কিন্ত আপনি এই সকল সেক্টর গুলোতে কাজ করলে  ১০০% টাকা পাবেন। 

1 thought on “মোবাইল দিয়ে টাকা আয় করার ৫টি সহজ উপায়”

Leave a Comment